$wpsc_last_post_update = 1574076927; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_pages[ "search" ] = 0; $wp_cache_pages[ "feed" ] = 0; $wp_cache_pages[ "category" ] = 0; $wp_cache_pages[ "home" ] = 0; $wp_cache_pages[ "frontpage" ] = 0; $wp_cache_pages[ "tag" ] = 0; $wp_cache_pages[ "archives" ] = 0; $wp_cache_pages[ "pages" ] = 0; $wp_cache_pages[ "single" ] = 0; $wp_cache_pages[ "author" ] = 0; $wp_cache_hide_donation = 0; $wp_cache_not_logged_in = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_clear_on_post_edit = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_hello_world = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_mobile_enabled = 1; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_cron_check = 1; //Added by WP-Cache Manager ?> $wpsc_last_post_update = 1574076927; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_pages[ "search" ] = 0; $wp_cache_pages[ "feed" ] = 0; $wp_cache_pages[ "category" ] = 0; $wp_cache_pages[ "home" ] = 0; $wp_cache_pages[ "frontpage" ] = 0; $wp_cache_pages[ "tag" ] = 0; $wp_cache_pages[ "archives" ] = 0; $wp_cache_pages[ "pages" ] = 0; $wp_cache_pages[ "single" ] = 0; $wp_cache_pages[ "author" ] = 0; $wp_cache_hide_donation = 0; $wp_cache_not_logged_in = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_clear_on_post_edit = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_hello_world = 0; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_mobile_enabled = 1; //Added by WP-Cache Manager $wp_cache_cron_check = 1; //Added by WP-Cache Manager ?> জরায়ুমুখ ক্যানসারের ৭টি প্রাথমিক লক্ষণ | সুস্বাস্থ্য ২৪
মা ও শিশু

জরায়ুমুখ ক্যানসারের ৭টি প্রাথমিক লক্ষণ

এমবিবিএস। অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী চিকিৎসক এবং প্রসবকালীন স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ে অভিজ্ঞ।

বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জরায়ুমুখ ক্যানসারের প্রকোপ অনেক বেশি। আমাদের এখানে গড়ে প্রতিদিন ৩৩ জন মহিলা এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। আশংকার বিষয় হচ্ছে, প্রতিরোধযোগ্য হওয়া সত্ত্বেও গড়ে প্রতিদিন ১৮ জন নারী এই রোগে প্রাণ দিচ্ছেন। বাংলাদেশে ক্যান্সারজনিত মৃত্যুর কারন হিসাব করলে জরায়ুমুখ ক্যান্সারকে দ্বিতীয় ধরা যায়। তাই এই রোগের ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিত। চলুন জরায়ুমুখ ক্যানসারের লক্ষণগুলো জেনে নেই-

প্রাথমিক লক্ষণ:

১. অতিরিক্ত সাদাস্রাব

২. দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব

৩. রক্তমিশ্রিত স্রাব

৪. অনিয়মিত ঋতুস্রাব

৫. সহবাসের পরে তলপেটে ব্যথা

৬. সহবাসের পর রক্ত যাওয়া

৭. মাসিক পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবার ১ বছর পরে আবারো রক্তপাত

 এছাড়া দীর্ঘস্থায়ী রোগের ক্ষেত্রে আরো কিছু উপসর্গ দেখা দেয়। যেমন:

 ১. পায়খানা প্রস্রাব করতে সমস্যা

২. পিঠ ও কোমরে ব্যথা অনুভূত হওয়া

৩. শরীর ফুলে যাওয়া

৪. রক্তশূন্যতা