স্বাস্থ্য

ঠাণ্ডার সময় নাক দিয়ে পানি পড়ে কেন?

এমবিবিএস, এমডি (নিউরোমেডিসিন-কোর্স), এফসিপিএস (মেডিসিন-দ্বিতীয় পর্ব), বিসিএস। মেডিকেল অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বাকেরগঞ্জ, বরিশাল।

ঠাণ্ডার সময় অনেকেরই নাক দিয়ে পানি পড়া শুরু হয়। বিষয়টা বেশ বিরক্তির। নাক দিয়ে পানি পড়ার অন্যতম কারন হলো নাকের রক্তনালী প্রসারিত হওয়া। ডাক্তারি ভাষায় যাকে বলে ভেসোডায়লেশন। অথচ আমরা জানি ঠাণ্ডার সময় রক্ত নালী সংকুচিত হয়ে যায়। অর্থাৎ ভেসোকন্সট্রিকশন হয়। তাহলে ঠাণ্ডা লাগলেই কেন নাক দিয়ে পানি পড়বে? চলুন দেখি চিকিৎসা বিজ্ঞান কি বলে।

ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় বের হলে শরীরের প্রান্তভাগের সব রক্তনালীগুলো সংকুচিত হয়ে যায়। ডাক্তাররা যাকে বলে পেরিফেরাল ভেসোকন্সট্রিকশন। কিন্তু নাকের রক্তনালীগুলো এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। ঠাণ্ডায় নাকের রক্তনালীগুলোতে ভেসোডায়লেশন হয়। শরীরকে রক্ষা করতেই এমনটা হয়। কারন যদি ফুসফুসের মধ্যে ঠাণ্ডা বাতাস ঢুকে তবে তা ভাইরাস দিয়ে ইনফেক্টেড হতে শুরু করবে। অর্থাৎ ফুসফুসে ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটবে। এই সংক্রমণ থেকে বাঁচতে হলে ঠাণ্ডা বাতাসকে গরম করে ফুসফুসে ঢুকাতে হবে। আর এই বাতাস গরম করার প্রক্রিয়াতেই নাকসহ শ্বাসতন্ত্রের সমস্ত রক্তনালীগুলো প্রসারিত হয়। প্রসারণের মাধ্যমে তা তাপ নিঃসরণ করে এবং বাতাসকে আদ্র করে তোলে।

আর যখনই নাকের রক্তনালীগুলো প্রসারিত হয় তখনই তা থেকে পানি বের হওয়া শুরু করে। আবার রক্তসঞ্চালন বেশি হলে নাকের গ্রন্থিগুলো সক্রিয় হয়ে উঠে। ফলে নাকে মিউকাস নিঃসরণও বাড়ে। এই মিউকাস এবং পানি মিলে নাক থেকে বেশি পানি ঝরানো শুরু করে।

আরো পড়ুন  গবেষণা বলছে ভাত খেলেও কমবে ক্যালরি!

বুঝলেন তো, ঠিক এই কারনেই ঠাণ্ডার সময় নাক দিয়ে পানি পড়ে। যদি এই বিরক্তিকর অভিজ্ঞতা থেকে বাঁচতে চান তবে ঠাণ্ডা আবহাওয়া এড়িয়ে চলুন। ঠাণ্ডার সময় প্রয়োজন না থাকলে বাইরে না বেরুনোই ভালো। যদি বের হতেই হয় তবে শীতের কাপড়, মাফলার ও মাস্ক সাথে রাখুন। এগুলো ব্যবহার করে এই সমস্যা থেকে অনেকটাই দূরে থাকা সম্ভব।