স্বাস্থ্য

ইনটেস্টিনাল অবস্ট্রাকশন বা আন্ত্রিক প্রতিবন্ধকতার লক্ষণ ও চিকিৎসা

এমবিবিএস (৫ম বর্ষ), স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ।

ইনটেস্টিনাল অবস্ট্রাকশন (Intestinal obstruction) বা আন্ত্রিক প্রতিবন্ধকতাকে ডাক্তারি মতে জরুরী অবস্থা (Emergency condition) বলা হয়। এটি এমন এক অবস্থা যখন রোগীর তাৎক্ষণিক চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

ইনটেস্টিনাল অবস্ট্রাকশন কি?

কোন কারণে অন্ত্র বা খাদ্যনালী আংশিক কিংবা সম্পূর্ণ বাধাগ্রস্ত হলে বা অন্ত্রে কোন ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরী হলে সেই অবস্থাকে ইনটেস্টিনাল অবস্ট্রাকশন বলা হয়। এর ফলে খাবার, তরল, পাকস্থলীর এসিড বা গ্যাস বাধাপ্রাপ্ত হয় এবং অন্ত্রের উপর চাপ বেড়ে যায়। ফলশ্রুতিতে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। আমাদের দেহে অন্ত্রের দুইটি অংশ, ক্ষুদ্রান্ত (Small intestine) এবং বৃহদন্ত (Large intestine)। অবস্ট্রাকশন বা প্রতিবন্ধকতা ক্ষুদ্রান্তেও হতে পারে, আবার বৃহদান্তেও হতে পারে।

লক্ষণ ও উপসর্গ:

¤ প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে:

১. প্রচন্ড পেট ব্যথা করা
২. পেট ফুলে যাওয়া
৩. পায়খানা না হওয়া এবং পেটের গ্যাস নির্গত না হওয়া
৪. কোষ্ঠকাঠিন্য থাকতে পারে
৫. বমি হওয়া
৬. ক্ষুধামন্দা

¤ বাচ্চাদের ক্ষেত্রে:

১. পেট ফুলে যাওয়া
২. হাঁটু বুকের কাছে নিয়ে আসা (ব্যথার সময়)
৩. পায়খানার সাথে রক্ত যাওয়া
৪. হলুদাভ সবুজ বমি হওয়া
৫. শারীরিক দুর্বলতা

আরো পড়ুন  রমজানে রোজা রাখার ৫টি শারীরিক সুফল

জটিলতা:

১. গ্যাংগ্রিন বা খাদ্যনালীতে পচন ধরা,
২. অন্ত্র বা খাদ্যনালীতে ছিদ্র হয়ে যাওয়া,
৩. রোগী শকে চলে যেতে পারে এবং এই অবস্থা থেকে মৃত্যুও হতে পারে।

intestine-obstruction-3

চিকিৎসা:

চিকিৎসা নির্ভর করে মূলত রোগের কারণ, ধরন এবং অবস্থানের উপর। সাধারণত সার্জারির মাধ্যমে অবস্ট্রাকশন অপসারণ করে খন্ডিত অংশ জোড়া লাগানো হয়।

ইনটেস্টিনাল অবস্ট্রাকশন নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা নিতান্ত কম নয়। এটি সহজে প্রতিরোধযোগ্য কোন রোগ নয়। তবে নিরাময়যোগ্য। অন্ত্রের টিউমার অথবা যে রোগের কারনে প্রতিবন্ধকতা তৈরী হয়েছে তার দ্রুত চিকিৎসা করলে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায়। প্রাথমিক পর্যায়েই চিকিৎসকের সংস্পর্শে এলে রোগীর দ্রুত নিরাময় সম্ভব।