খাদ্য ও পুষ্টি

ছোট মাছের পুষ্টিগুণ

ফ্যাকাল্টি, পাবলিক হেলথ বিভাগ, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি- বাংলাদেশ

মাছ বাঙালির খুবই পছন্দের একটি খাদ্য। সব বয়সীদের জন্যই মাছ উপাদেয় ও সহজপাচ্য। তাই পরিবারের সদস্যদের আমিষের চাহিদা পূরণে মাছের গুরুত্ব সর্বাধিক। দামে তুলনামূলকভাবে সস্তা ও সহজলভ্য হওয়ার কারণে ছোট মাছ, বড় মাছের তুলনায় বেশি খাওয়া হয়।

ছোট মাছ বলতে মূলত পুঁটি মাছ, কাঁচকি মাছ, মলা, ঢেলা, টেংরা, কৈ, মইলশা, শিং, পাবদা, বাটা, মেনি ইত্যাদিকেই বুঝিয়ে থাকে। আমাদের দেশে এই মাছগুলো খুব সহজেই পাওয়া যায়।

ছোট মাছের বৈশিষ্ট্য:

১. ছোট মাছের তন্তুগুলো অপেক্ষাকৃত নরম।

২. ছোট মাছ সহজপাচ্য।

৩. এতে স্নেহ পদার্থ কম থাকে।

৪. নরম কাঁটাযুক্ত ছোট মাছ, যেমন: কাঁচকি, মৌরলা, কাজলি ইত্যাদি আমাদের দেহে প্রচুর ক্যালসিয়াম সরবরাহ করে।

৫. ছোট মাছে যথেষ্ট পরিমাণে ফসফরাস ও আয়োডিন থাকে।

৬. ছোট মাছের মধ্যে কৈ মাছ ও সরপুঁটিতে প্রচুর চর্বি থাকে। এজন্য এসব মাছের ক্যালরি মূল্য অনেক বেশি।

ছোট মাছের পুষ্টিগুণ:

১. জলীয় অংশ              ৭৫.০ গ্রাম

২. খনিজ পদার্থ             ১.৪ গ্রাম

৩. ক্যালসিয়াম              ১১০ মিলিগ্রাম

৪. প্রোটিন বা আমিষ        ১৮.১ গ্রাম

আরো পড়ুন  পুরুষের যৌন দুর্বলতা দূর করবে যে ৫টি খাবার

৫. চর্বি                     ২.৪ গ্রাম

৬. কার্বোহাইড্রেট            ৩.১ গ্রাম

৭. ভিটামিন-সি              ১৫ মিলিগ্রাম

৮. লৌহ বা আয়রন         ১.০ মিলিগ্রাম

৯. এনার্জি                  ১০৬ কিলোক্যালরি